ভয়েই ‘ঐক্যবদ্ধ ভারত’-এর পক্ষে কথা বলছেন তারকারা, মত কঙ্কনার

ফাইল চিত্র

‘ভয়’-থেকেই ‘ঐক্যবদ্ধ’ হয়েছেন ভারতীয় তারকারা। এমনটাই মত অভিনেত্রী কঙ্কনা সেনশর্মার। তাঁর মতে, হঠাৎ ‘জেগে ওঠা’ একতা বোধ নয়, বরং ভয় থেকেই বিভিন্ন জগতের তারকারা টুইট করেছেন।

দেশের কৃষক আন্দোলন নিয়ে আন্তর্জাতিক মহলের প্রতিক্রিয়ার প্রতিবাদে বুধবার রাত থেকেই টুইটারে ঘোরাফেরা করছে ‘ঐক্যবদ্ধ ভারত’-এর আহ্বান। বিষয়টি নিয়ে সরব হয়েছেন অক্ষয় কুমার থেকে সচিন তেণ্ডুলকার, লতা মঙ্গেশকর, বিরাট কোহালি, অজয় দেবগণ, কর্ণ জোহর, সাইনা নেহাওয়ালের মতো তারকারা। ‘অপপ্রচারের বিরুদ্ধে ভারত’ হ্যাশট্যাগে আন্তর্জাতিক মহলের নিন্দার বিরোধিতা করেছেন সকলেই। সেই সঙ্গে প্রত্যেকে তুলে ধরেছেন বিদেশমন্ত্রকের জারি করা একটি টুইটার-বিবৃতি। দেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রের তারকাদের এ ভাবে একসঙ্গে একই টুইট করতে দেখে স্বাভাবিক ভাবে অনেকে প্রশ্ন করতে শুরু করেন, সত্যিই কি এতটা ‘একতা বোধ’ কাজ করেছে তারকা জগতে? নাকি অন্য কোনও বিষয়, অন্য কোনও অনুভূতি বাধ্য করেছে তাঁদের একইসঙ্গে একই রকম টুইট করতে?

 

বুধবার রাতে উত্তরের আশায় প্রশ্নটা সমাজ মাধ্যমে করেই ফেলেন এক সাংবাদিক অমিত বর্মা। টুইটারে তিনি জানতে চান, ‘মাঝে মধ্যেই আমার মনে হয়, বলিউড অথবা ক্রিকেট তারকারা যখন, যা যা করেন, তা কি গাজরের জন্য নাকি, অন্য হাতে থাকা লাঠিটাই তাদের এ সব করতে বাধ্য করে’! ব্যাপারটা আর একটু স্পষ্ট করে অমিত জানতে চান, ‘আমাদের দেশের তারকারা যে পরিমাণ ধনী, তাতে ঘুষ দেওয়া যাবে বলে মনে হয় না, তবে কি তাঁরা ভয় পেয়েই এত হট্টগোল? কিন্তু কীসের ভয়? আশা করি তারকা জগতের মধ্যে থেকে কেউ আমাকে সঠিক জবাব দেবেন’। অর্থাৎ, ‘গাজর’ এবং ‘লাঠি’র উপমা দিয়ে তিনি নরমে-গরমে কাজ করিয়ে নেওয়ার কৌশলের দিকেই ইঙ্গিত করেন।

দেখা গেল, জবাব দিতে বিনোদন জগতের প্রতিনিধি হয়ে এগিয়ে এসেছেন অভিনেত্রী তথা বঙ্গতনয়া কঙ্কনা। অমিতের টুইটের জবাবে কঙ্কনা লেখেন, ‘আমার মতে বেশিরভাগের ক্ষেত্রেই ভয়ই কাজ করে’।

ভারতের কৃষক আন্দোলন নিয়ে আন্তর্জাতিক তারকা রিহানা, পরিবেশ আন্দোলনকর্মী গ্রেটা থুনবার্গরা সরব হতেই তার বিরুদ্ধে রীতিমতো বিবৃতি জারি করে প্রতিবাদ জানায় ভারত সরকার। বিদেশ মন্ত্রক জানায়, কৃষকদের সুবিধার্থেই কৃষি আইন প্রবর্তন করেছে ভারত। বিষয়টি নিয়ে সম্পূর্ণ না জেনেই ভারতের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছেন স্বার্থসন্ধানীদের একটি দল। যা কখনওই কাম্য নয়।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীও টুইট করে বলে, ‘কোনও প্রচারেই ভারতের ঐক্য নষ্ট হওয়ার নয়’। এরপরই দেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রের তারকারা সরকারি বিবৃতি সমাজমাধ্যমে শেয়ার করে ঐক্যবদ্ধ ভারতের বার্তা দেন।