মুকুলের তৃণমূলে ফেরা নিয়ে জল্পনা অবসান,বড়সড় ইঙ্গিত দিলেন সৌগত

রাজ্য রাজনীতিতে এই মুহূর্তে লাখ টাকার প্রশ্ন, বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি মুকুল রায় কি গেরুয়া শিবির ছেড়ে তৃণমূলেই ফিরতে চলেছেন? সেই প্রশ্নের উত্তর অজানা থাকলেও তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়ের মন্তব্যে জল্পনা আরও উসকে গেল।

সৌগত প্রকাশ্যেই বলে দিলেন, তৃণমূল ত্যাগ করলেও শুভেন্দু অধিকারীদের মতো মমতাকে নিয়ে বাজে কথা কখনও বলেননি মুকুল রায়। রাজনৈতিক মহলের ধারণা, মুকুল ফিরতে চাইলে তৃণমূলের রাস্তা যে তাঁর জন্য খোলা, সেটা ইশারা ইঙ্গিতে বুঝিয়েই দিলেন সৌগত।

আরও পড়ুন-বিজেপি ছাড়ছেন মুকুল রায়? বললেন যন্ত্রনায় জ্বলছি

বঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের আগেই একবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বলতে শোনা গিয়েছিল,”মুকুল অত খারাপ নয়। ও বাজে কথা বলে না।” আবার নজিরবিহীনভাবে বিধানসভা নির্বাচনে কার্যত নিষ্ক্রিয়ই ছিলেন মুকুল। মূলত নিজের কেন্দ্রেই ভোট প্রচার সেরেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি। ভোটের ফলপ্রকাশের পর গেরুয়া শিবিরের একাধিক বৈঠকে তিনি অনুপস্থিত থেকেছেন। আবার নিজের সল্টলেকের বাড়িতে অনুগামীদের নিয়ে একাধিক বৈঠকও সেরেছেন। মঙ্গলবারও দিলীপ ঘোষের ডাকা বৈঠকে গরহাজির ছিলেন মুকুল।

আরও পড়ুন-শীতলকুচিকাণ্ডে পুলিসের হাতে চাঞ্চল্যকর তথ্য,ইতিমধ্যেই ফরেনসিক টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছে গিয়েছে  

এদিকে বুধবারই সল্টলেকে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা অনুগামীদের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি। তাঁর সঙ্গে দেখা করেছেন বিজেপির ‘দিলীপ বিরোধী’ শিবিরের নেতা সৌমিত্র খাঁ। শোনা যাচ্ছে, আরেক বেসুরো বিজেপি নেতা রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গেও যোগাযোগ রাখছেন মুকুল। এসবের মাঝে আবার হাসপাতালে মুকুলবাবুর অসুস্থ স্ত্রী-কে দেখতে গিয়েছিলেন তৃণমূলের নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। যা নিয়ে আবার অভিষেকের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়েছেন মুকুলপুত্র শুভ্রাংশু। সব মিলিয়ে মুকুলের তৃণমূলে ফেরা নিয়ে জল্পনা যখন তুঙ্গে,তখনই বড়সড় ইঙ্গিত দিলেন সৌগত রায়।

আরও পড়ুন-নারদ মামলায় মুখ্যমন্ত্রীর হলফনামা গ্ৰহণ করল না কলকাতা হাই কোর্ট

দমদমের সাংসদের দাবি, “এমন বহু নেতা আছে, যারা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে, এবং তাঁরা এখন ফিরে আস চায়।” সৌগতর বক্তব্য তৃণমূলের এই দলত্যাগীরা মূলত দুই শিবিরে বিভক্ত। কেউ কেউ নরমপন্থী, কেউ কেউ চরমপন্থী। এরপরই বর্ষীয়ান তৃণমূল নেতা বলেন, “শুভেন্দু অধিকারীর মতো নেতারা যেখানে মমতাকে নিয়ে প্রকাশ্যেই বাজে কথা বলেছে, সেখানে মুকুল রায় কখনও মমতাকে নিজে কটু কথা বলেননি।” সৌগতর এই মন্তব্যের পরই অনেকে প্রশ্ন তুলছেন, তাহলে কি ‘নরমপন্থী’ মুকুলের জন্য দলের রাস্তা খুলে দিল তৃণমূল? যদিও সৌগতবাবু স্পষ্ট করে দিয়েছেন, দলত্যাগীদের ফেরানো নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত মমতাই নেবেন।