তৃনমূলেই ফিরছেন রাজীব? তৈরি ডোমজুরের তৃনমূল নেতাকর্মীরা

রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের গতকালের ফেসবুক পোস্টের পর এবার ডোমজুড়ে তাঁর বিরুদ্ধে পোস্টার। আজ সকালে সলপ বাজার এলাকায় তৃণমূলের নামে ওই পোস্টার দেখা যায়। পোস্টারে লেখা, বিশ্বাসঘাতক রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কে যেন দলে ফেরানো না হয়।

ভোটের আগে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। ডোমজুড় থেকে বিজেপির প্রার্থী হলেও ভোটে পরাজিত হন। এরপর গতকাল রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের বেসুরো ট্যুইট ঘিরে জল্পনা ছড়ায়। এনিয়ে তৃণমূলের হাওড়া জেলা সদরের চেয়ারম্যান অরূপ রায়ের কটাক্ষ, দলে বিশ্বাসঘাতকদের জায়গা নেই। তবে উৎপল দত্ত বেঁচে থাকলে এই অভিনয় দেখে লজ্জা পেতেন। বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও, এখনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের।

আরও পড়ুন-রাজীব ব্যানার্জিকে নিয়ে চাঞ্চল্যকর মন্তব্য শুভেন্দু অধিকারীর

উল্লেখ্য, গতকালই ফেসবুক পোস্টে  বিজেপির বিরুদ্ধে বিস্ফোরক মন্তব্য করেন  রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। ফেসবুকে তিনি লিখেছেন, মুখ্যমন্ত্রীর বিরোধিতা করতে গিয়ে ৩৫৬ ধারার জুজু দেখালে বাংলার মানুষ ভালভাবে নেবে না। এনিয়ে তৃণমূল-বিজেপির মধ্যে শুরু হয়েছে তরজা।?

আরও পড়ুন-মিঠুন চক্রবর্তী মামলা খারিজের দাবিতে আর্জি জানালেন হাইকোর্টে

রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের গতকালের ফেসবুক পোস্টের পর এবার ডোমজুড়ে তাঁর বিরুদ্ধে পোস্টার। আজ সকালে সলপ বাজার এলাকায় তৃণমূলের নামে ওই পোস্টার দেখা যায়। পোস্টারে লেখা, বিশ্বাসঘাতক রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কে যেন দলে ফেরানো না হয়।

আরও পড়ুন-তৃণমূলে ফিরছেন রাজিব একপ্রকার নিশ্চিত, বিজেপির বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ

ভোটের আগে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। ডোমজুড় থেকে বিজেপির প্রার্থী হলেও ভোটে পরাজিত হন। এরপর গতকাল রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের বেসুরো ট্যুইট ঘিরে জল্পনা ছড়ায়। এনিয়ে তৃণমূলের হাওড়া জেলা সদরের চেয়ারম্যান অরূপ রায়ের কটাক্ষ, দলে বিশ্বাসঘাতকদের জায়গা নেই। তবে উৎপল দত্ত বেঁচে থাকলে এই অভিনয় দেখে লজ্জা পেতেন। বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও, এখনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের।

আরও পড়ুন-শীতলকুচিকাণ্ডে পুলিসের হাতে চাঞ্চল্যকর তথ্য,ইতিমধ্যেই ফরেনসিক টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছে গিয়েছে  

উল্লেখ্য, গতকালই ফেসবুক পোস্টে  বিজেপির বিরুদ্ধে বিস্ফোরক মন্তব্য করেন  রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। ফেসবুকে তিনি লিখেছেন, মুখ্যমন্ত্রীর বিরোধিতা করতে গিয়ে ৩৫৬ ধারার জুজু দেখালে বাংলার মানুষ ভালভাবে নেবে না। এনিয়ে তৃণমূল-বিজেপির মধ্যে শুরু হয়েছে তরজা।