বিজেপিতে কি যোগ দিচ্ছেন শিশির-দিব্যেন্দু? জানালেন দিলীপ ঘোষ

রাজ্য রাজনীতিতে এখন চলছে ভাঙা-গড়ার খেলা। ভোটমুখী বাংলায় এখন প্রায় রোজই শিরোনামে আসছে দলবদলের খবর। ইতিমধ্যেই শিবির বদলে ঘাসফুল থেকে পদ্মফুলে নাম লিখিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী, রাজীব বন্দ্যোপাধ্য়ায়, শীলভদ্র দত্ত, সুনীল মন্ডল, বৈশালী ডালমিয়া, দীপক হালদার, রথীন চক্রবর্তী প্রমুখ। দাদা শুভেন্দুর হাত ধরে গেরুয়া শিবিরে যোগ দিয়েছেন ভাই সৌমেন্দু অধিকারীও। এখন প্রশ্ন বাবা শিশির অধিকারী ও আরেক সাংসদ ভাই দিব্যেন্দু অধিকারীকে নিয়ে। একের পর এক মুখ্যমন্ত্রীর সভায় অনুপস্থিত দুজনে। দেখা মিলছে দলীয় কর্মসূচিতেও। তবে তাঁরাও কি এবার বিজেপিতে? শুভেন্দুর দলবদলের পর থেকেই এই প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। ইতিমধ্যেই একসঙ্গে ৭টি প্রশাসনিক পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন দিব্যেন্দু। জোর জল্পনা চলছে তাঁদের দুজনকে নিয়ে। শিশির-দিব্যেন্দুর বিজেপিতে যোগদানের প্রশ্ন এবার মুখ খুললেন দিলীপ ঘোষ। খোলসা করলেন যোগদান প্রসঙ্গ।

এদিন ইকোপার্কে প্রাতঃভ্রমণে বেরিয়ে রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, “শিশির অধিকারী এবং দিব্যেন্দ্যু অধিকারী বিজেপিতে যোগদান করছে বলে আমার এখনও জানা নাই। যোগদানের প্রশ্নও নেই।” উল্লেখ্য, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় তোপ দেগেছেন, শুভেন্দু অধিকারী তৃণমূলে থাকাকালীন দল ভাঙার চেষ্টা করেছে। এই নিয়েও এদিন কড়া প্রতিক্রিয়া দেন দিলীপ ঘোষ।

বলেন, “আমরাও তো ৬ বছর ধরে শুনছিলাম, শুভেন্দু অধিকারী আসবেন বলে! তারপরও আসেননি। তাঁর সঙ্গে যা ইচ্ছা তাই করেছে। তাঁর পরিবারের সঙ্গেও। সমস্ত সুযোগ নেওয়ার পরেও। পার্টিকে দাঁড় করানোর পরেও। কে বের করেছে? তাঁর বাবাকে কে বের করেছে? ওরা কোনও যোগ্য লোককে পার্টিতে থাকতে দেবে না। কারণ ওটা প্রাইভেট প্রপার্টি, কোম্পানি। কোনও যোগ্য ব্যক্তি, ভদ্রলোক থাকতে পারবেন না! শুভেন্দু অধিকারী না হয় চলে গিয়েছেন। কিন্তু বাকিরা কেন চলে যাচ্ছেন? ওই পার্টিতে কোনও গণতন্ত্র নেই। কার্যকর্তাদের কোনও অধিকার নেই। মান-সম্মান নেই। তাই তাঁরা বিকল্প খুঁজছেন। উন্নয়নের স্বার্থে ভারতীয় জনতা পার্টির পতাকার তলায় আসছেন।